অভিভাবক ছাড়া বিয়ে হয় কিনা!

আসসালামু আলাইকুম।

আমার একটি প্রশ্ন ছিলো বিবাহ সম্পর্কিত

আমি ইউনিভার্সিটি ফাইনাল ইয়ারে পড়ছি।  ৩ বছর আগে আমাকে আমার পারিবারিক পরিচিত এক ভদ্রলোক বিবাহের প্রস্তাব দেন।  আমি আমার পরিবারে সেটা জানালে তারা আমার পছন্দ মেনে নিয়ে আমার বড় বোনের বিয়ে পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলেন।  এই সময়ে আমাদের সম্পর্ক গভীর হতে থাকলে আমরা সতর্ক হই এবং এক জন ইমাম এর পরামর্শে সাক্ষী সমেত বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই।

কিছু মাস আগে আমি একটি হাদিস জানতে পারি :

‘Aa’ishah (may Allaah be
pleased with her) said: The Messenger of Allaah (peace and blessings
of Allaah be upon him) said: Any woman who gets married without the
permission of her guardian, her marriage is invalid, her marriage is
invalid, her marriage is invalid. But if the marriage is consummated
then the mahr is hers because she has allowed him to be intimate with
her. If they dispute, then the ruler is the guardian of the one who
has no guardian.” (Narrated by al-Tirmidhi, 1102; Abu Dawood, 2083;
Ibn Maajah, 1879. Classed as saheeh by al-Albaani in Irwa’ al-Ghaleel,
1840)

আমি এই ব্যাপারে আমার স্বামীকে অবহিত করলে তিনি বলেন,  ওয়ালি ব্যতিত বিয়ে হবে না এটি লা মাজহাবি ও অন্য তিন মাজহাবের মতবাদ,  হানাফী মাজহাব মতে আমাদের বিয়ে বৈধ এবং এ ব্যাপারে তিনি দলীল দেন :

(1) It is narrated in the Muwatta of Imam Malik, in a rigorously
authentic narration (sahih), that a woman came to the Prophet ( Allah
bless him and grant him peace) and gave herself in marriage. The
Prophet (Allah bless him and grant him peace) married her to one of
his companions. There was no wali of the woman present in this
situation.
(2) It is narrated by Imam Tahawi that Sayyidah `A’isha (Allah be well
pleased with her) married her niece Hafsa bint `Abd Al Rahman to
Munzar ibn Zubayr while `Abd AlRahman (Hafsa’s father) was away in
Syria. (Sharh Ma`ani al Athar, bab al nikah bighayr wali `asabatin)
Ibn Hajar `Asqalani states in his al Diraya that its chain is
rigorously authentic (sahih). This is a clear indication of the
validity of the marriage of a sane, adult female without the presence
of her guardian.
(3) It is narrated in the Sahih of Imam Muslim (kitab al nikah, bab
isti’dhan al thayyib fi’l nikah) from Ibn `Abbas that the Prophet
(Allah bless him and grant him peace) said, “The unmarried woman has
more right over herself than her guardian.” (Also: Sunan al Nasa’i,
bab isti’dhan al bakr fi nafsiha; Abu Dawud, bab fi’l thayyib;
Tirmidhi) This shows that the guardian cannot force an adult woman –
whether a virgin or not – into marriage and thus does not have wilayat
al ijbar, contrary to what the Shafi` school states that the virgin
adult can be forced into marriage. Rather, who she marries is fully
her own choice and right.
(4) Abu Salama narrates that a woman came to the Prophet (Allah bless
him and grant him peace) and said, “‘Indeed, my father married me to a
man and I dislike it.’ He (the Prophet)said to her father, ‘Let her go
and marry who she wills.’” Ibn Hajar said in his Diraya,
“Thisnarration is mursal jayyid.”
(5) In another similar narration it is mentioned that a virgin came to
the Prophet (Allah bless him and grant peace) and complained about her
marriage after which the Prophet (Allah bless him and grant him peace)
gave her the right to marry who she willed. (Abu Dawud, kitab al
nikah; Nasa’i, and Ibn Majah from Ibn `Abbas) It is stated in `Awn al
Ma`bud, “This narration is proof for the unlawfulness of the fathers
forcing his virgin daughter into marriage.”
(6) It is narrated in the that Sayyidina `Ali (Allah be well-pleased
with him) discouraged marriage without the approval of the guardian
but considered such a marriage valid nonetheless. (Kanz al Ummal
#45772; Musannaf Ibn Abi Shayba)
(7) It is narrated in the Muwatta that Sa`id ibn al Musayyib said,
“`Umar ibn Khattab said, ‘It is not right for a woman to be married
unless with the permission of her guardian, or a member of her family
of sound judgement, or the ruler.” (bab nikah bighayr wali, #541) This
is also proof for the Hanafi school since “a member of her family” is
not considered a guardian and can be anyone.
(8) This was also the position of many of the major followers. Ma`mar
said, “I asked Zuhri about a woman marrying without a guardian and he
said, ‘If they are suitable, it is permitted.’ (wa in kaana kaf’
jaaz)” (Ibn Abi Shayba, bab fi’l mir’at idha tazawjat bighayr wali)
This is also related from al Sha`bi, Ibn Sirin, Qatadah, and others.
(9) Allah Most High states, “When you divorce women, and they have
reached their term, do not forbid them from marrying (yankihna) their
husbands, when they have agreed together honourably.” (2: 232). Imam
Jassas states in his brilliant work Ahkam al Qur’an, “And His, Most
Highs, saying, ‘do not forbid them’ means do not prohibit them or do
not place constraint upon them in marrying. Verily, in this verse is a
clear indication of the validity of marriage when she contracts it
herself, without a guardian or the permission of her guardian.
Firstly, because the annexing of the contract [s: the marriage
contract] is towards her without conditioning it with the guardians
permission. Secondly, It prohibits [s: the guardian, former husband,
and all others] from forbidding when the marriage partners reach
mutual agreement.” (surah al baqarah,bab al nikah bighayr wali)
Those who state that the prohibition of forbidding the woman from
remarrying is only an address to the ex-husband are not correct. As
Imam Jassas states, it is permitted to take the verse on its general
and apply such prohibition to the guardian, ex-husband, and all of
people.
(10) The most commonly cited proof against the Hanafis is the
statement of the Prophet (Allah bless him and grant him peace), “There
is no marriage without a guardian (wali).” This narration is a
lone-narrated report (khabar wahid) and not decisive as proof and
therefore cannot condition the general purport of the Qur’an. The
negation “la nikah” is interpreted not to refer to the validity of the
marriage contract, but rather to propriety according to the Hanafi
scholars. There are many other examples of this such as the Prophet’s
(Allah bless him and grant him peace) saying, “None believes (la
yu’minu) until he loves for his brother what he loves for himself,”
wherein the particle of negation is not a negation of one’s iman in
reality but rather a nafi al kamal (negation of perfectness). The same
is the case with the nikah; it will be considered valid but improper.
This is why the Hanafi scholars mentioned that seeking the consent of
the guardian is highly recommended. (Bahr al Ra’iq, bab al awliya’
wa’l akfaa’; Bada`i al Sana`i, fasl wa ama al wilayat al nadb wal
istihbab)

আমি ইতিমধ্যে আমার পরিবারে আবারো আমার সমস্যার কথা বলেছি, তারা আমাকে অপেক্ষা করতে বলেছেন কেননা আমার বোনের এখনো বিয়ে হয় নি। আমার স্বামীর পরিবার থেকেও আমার বাবার কাছে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। আমি আমার স্বামীর সাথে দেখা সাক্ষাৎ বন্ধ রেখেছি, কিন্তু তিনি মানতে চাইছেন না এবং আমার জন্য পরিস্থিতি দিনদিন কঠিন হচ্ছে।

আমি এখন কি করব?  আমার বিয়ে কি বৈধ হয়েছে?

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক.

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

যদি দুইজন প্রাপ্ত বয়স্ক সমঝদার সাক্ষ্যির সামনে প্রাপ্ত বয়স্ক পাত্র ও পাত্রি যদি প্রস্তাব দেয় এবং অপরপক্ষ তা গ্রহণ করে নেয়, তাহলে ইসলামী শরীয়া মুতাবিক বিবাহ শুদ্ধ হয়ে যায়। অভিভাবকের সম্মতি থাকুক বা না থাকুক। অভিভাবক জানুক বা না জানুক। তবে যদি গায়রে কুফুতে বিবাহ করে, তথা এমন পাত্রকে বিবাহ করে, যার কারণে মেয়ের পারিবারিক সম্মান বিনষ্ট হয়, তাহলে পিতা সে বিয়ে আদালতের মাধ্যমে ভেঙ্গে দিতে পারে। যদি কুফুতে বিবাহ করে, তাহলে পিতা এ অধিকারও পাবে না।

সুতরাং আপনারা উভয়ে যদি প্রাপ্ত বয়স্ক অবস্থায় দুইজন প্রাপ্ত বয়স্ক সাক্ষ্যির উপস্থিতিতে বিয়ের প্রস্তাব ও প্রস্তাব গ্রহণ সম্পন্ন করে থাকেন, তাহলে আপনাদের বিয়ে ইসলামী শরীয়া মুতাবিক শুদ্ধ হয়ে গেছে। যদিও আপনাদের পরিবার কিছুই জানে না। কিংবা যদি তারা অনুমতি নাও দিয়ে থাকে।

عَنْ عَبْدِ اللهِ بْنِ عَبَّاسٍ؛ أَنَّ رَسُولَ اللهِ صلى الله عليه وسلم، قَالَ: «الْأَيِّمُ أَحَقُّ بِنَفْسِهَا مِنْ وَلِيِّهَا.

হযরত আব্দুল্লাহ বিন আব্বাস রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, মেয়ে তার ব্যক্তিগত বিষয়ে অভিভাবকের চেয়ে অধিক হকদার। {মুয়াত্তা মালিক, হাদীস নং-৮৮৮, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-১৪২১, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-১৮৮৮, সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-২০৯৮, সুনানে দারেমী, হাদীস নং-২২৩৪, সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং-১১০৮, সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং-৩২৬০, সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস নং-৪০৮৪, সুনানে দারাকুতনী, হাদীস নং-৩৫৭৬}

عَنْ أَبِي سَلَمَةَ بْنِ عَبْدِ الرَّحْمَنِ قَالَ: ” جَاءَتِ امْرَأَةٌ إِلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، فَقَالَتْ: يَا رَسُولَ اللَّهِ، إِنَّ أَبِي وَنِعْمَ الْأَبُ هُوَ، خَطَبَنِي إِلَيْهِ عَمُّ وَلَدِي فَرَدَّهُ، وَأَنْكَحَنِي رَجُلًا وَأَنَا كَارِهَةٌ. فَبَعَثَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ إِلَى أَبِيهَا، فَسَأَلَهُ عَنْ قَوْلِهَا، فَقَالَ: صَدَقَتْ، أَنْكَحْتُهَا وَلَمْ آلُهَا خَيْرًا. فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «لَا نِكَاحَ لَكِ، اذْهَبِي فَانْكِحِي مَنْ شِئْتِ

হযরত সালামা বিনতে আব্দুর রহমান রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদা এক মেয়ে রাসূল সাঃ এর কাছে এল। এসে বলল, হে আল্লাহর রাসূল! আমার পিতা! কতইনা উত্তম পিতা! আমার চাচাত ভাই আমাকে বিয়ের প্রস্তাব দিল আর তিনি তাকে ফিরিয়ে দিলেন। আর এমন এক ছেলের সাথে বিয়ে দিতে চাইছেন যাকে আমি অপছন্দ করি। এ ব্যাপারে রাসূল সাঃ তার পিতাকে জিজ্ঞাসা করলে পিতা বলে, মেয়েটি সত্যই বলেছে। আমি তাকে এমন পাত্রের সাথে বিয়ে দিচ্ছি যার পরিবার ভাল নয়। তখন রাসূল সাঃ মেয়েটিকে বললেন, “এ বিয়ে হবে না, তুমি যাও, যাকে ইচ্ছে বিয়ে করে নাও”। {সুনানে সাঈদ বিন মানসূর, হাদীস নং-৫৬৮, মুসন্নাফে আব্দুর রাজ্জাক, হাদীস নং-১০৩০৪, মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-১৫৯৫৩, দিরায়া ফী তাখরীজি আহাদিসীল হিদায়া, হাদীস নং-৫৪১}

2469 – حَدَّثَنَا حُسَيْنٌ، حَدَّثَنَا جَرِيرٌ، عَنْ أَيُّوبَ، عَنْ عِكْرِمَةَ، عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ: ” أَنَّ جَارِيَةً بِكْرًا أَتَتِ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، فَذَكَرَتْ أَنَّ أَبَاهَا زَوَّجَهَا وَهِيَ كَارِهَةٌ فَخَيَّرَهَا النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ”

إسناده صحيح على شرط البخاري.

وأخرجه أبو داود (2096) ، وابن ماجه (1875) ، والنسائي في “الكبرى” (5387) ، وأبو يعلى (2526) ، والطحاوي 4/365، والدارقطني 3/234-235، والبيهقي 7/117 من طريق حسين بن محمد المروذي، بهذا الإسناد.

وأخرجه ابن ماجه (1875) ، والنسائي (5389) ، والدارقطني 3/235 من طريق مُعمر بن سليمان، عن زيد بن حبان، والدارقطني 3/235 من طريق أيوب بن سويد، عن سفيان الثوري، كلاهما عن أيوب السختياني، به.

হযরত ইবনে আব্বাস রাঃ থেকে বর্ণিত। কুমারী মেয়ে রাসূল সাঃ এর কাছে এসে বলল, আমার পিতা আমার অপছন্দ সত্বেও বিয়ে দিয়েছে, তখন রাসূল সাঃ সে মেয়েকে অধিকার দিলেন, [যাকে ইচ্ছে বিয়ে করতে পারে বা এ বিয়ে রাখতেও পারে]। {মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-২৪৬৯, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-১৮৭৫, সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-২০৯৬, সুনানুল কুবরা নাসায়ী, হাদীস নং-৫৩৬৬, সুনানে দারা কুতনী, হাদীস নং-৩৫৬৬}

عَنِ ابْنِ بُرَيْدَةَ، عَنْ أَبِيهِ، قَالَ: جَاءَتْ فَتَاةٌ إِلَى النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، فَقَالَتْ: ” إِنَّ أَبِي زَوَّجَنِي ابْنَ أَخِيهِ، لِيَرْفَعَ بِي خَسِيسَتَهُ، قَالَ: فَجَعَلَ الْأَمْرَ إِلَيْهَا، فَقَالَتْ: قَدْ أَجَزْتُ مَا صَنَعَ أَبِي، وَلَكِنْ أَرَدْتُ أَنْ تَعْلَمَ النِّسَاءُ أَنْ لَيْسَ إِلَى الْآبَاءِ مِنَ الْأَمْرِ شَيْءٌ “

হযরত বুরাইদা রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, জনৈক মহিলা নবীজী সাঃ এর কাছে এসে বলল, আমার পিতা আমাকে তার ভাতিজার কাছে বিয়ে দিয়েছে, যাতে তার মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। রাবী বলেন, তখন রাসূল সাঃ বিষয়টি মেয়ের ইখতিয়ারের উপর ন্যস্ত করেন, [অর্থাৎ ইচ্ছে করলে বিয়ে রাখতেও পারবে, ইচ্ছে করলে ভেঙ্গেও দিতে পারবে] তখন মহিলাটি বললেন, আমার পিতা যা করেছেন, তা আমি মেনে নিলাম। আমার উদ্দেশ্য ছিল, মেয়েরা যেন জেনে নেয় যে, বিয়ের ব্যাপারে পিতাদের [চূড়ান্ত] মতের অধিকার নেই্ {সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-১৮৭৪, মুসনাদে ইসহাক বিন রাহুয়াহ, হাদীস নং-১৩৫৯, সুনানে দারা কুতনী, হাদীস নং-৩৫৫৫}

উল্লেখিত হাদীস ছাড়াও আরো এমন অনেক হাদীস রয়েছে, যা স্পষ্ট ভাষায় প্রমাণ করে যে, বিয়ের ক্ষেত্রে অভিভাবক নয়, প্রাপ্ত বয়স্ক মেয়ের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত। এক্ষেত্রে পিতা বা অভিভাবকের হস্তক্ষেপের অধিকার নেই।

সুতরাং প্রাপ্ত বয়স্ক মহিলা অভিভাবক ছাড়া বিয়ে করে নিলে তা সম্পন্ন হয়ে যাবে।

বিপরীতমুখী হাদীসের জবাব কি?

যে সকল হাদীস দ্বারা একথা বুঝা যায় যে, অভিভাবক ছাড়া বিয়ে সম্পন্ন হয় না, সেগুলোর অনেকগুলো জবাব মুহাদ্দিসীনে কেরাম ও ফুক্বাহায়ে কেরাম দিয়েছেন।

প্রশ্নে উল্লেখিত হাদীসটি আমরা দেখে নেই, তাহলে উত্তর দিতে সুবিধা হবে

عَنْ عَائِشَةَ، قَالَتْ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «أَيُّمَا امْرَأَةٍ نَكَحَتْ بِغَيْرِ إِذْنِ مَوَالِيهَا، فَنِكَاحُهَا بَاطِلٌ»، ثَلَاثَ مَرَّاتٍ «فَإِنْ دَخَلَ بِهَا فَالْمَهْرُ لَهَا بِمَا أَصَابَ مِنْهَا، فَإِنْ تَشَاجَرُوا فَالسُّلْطَانُ وَلِيُّ مَنْ لَا وَلِيَّ لَهُ»

হযরত আয়শা রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, যে মহিলাকে তার অভিভাবক বিয়ে দেয়নি, তার বিয়ে বাতিল, তার বিয়ে বাতিল, তার বিয়ে বাতিল। এরপর স্বামী যদি তার তার সাথে মিলামিশা করে তবে সে মহরের অধিকারী হবে স্বামী তার সাথে [হালাল পদ্ধতিতে] মেলামেশা করার কারণে। আর যদি তাদের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দেয়, তবে যার অভিভাবক নেই, বাদশাই তার অভিভাবক বলে বিবেচিত হবে। {সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-১৮৭৯, সুনানে তিরামিজী, হাদীস নং-১১০২, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-১৮৭৯}

হাদীসটির বিষয়ে মন্তব্য

ইমাম বুখারী রহঃ বলেন, হাদীসটি মুনকার। {আলইলালুল কাবীর-২৫৭}

ইমাম তিরমিজী রহঃ বলেন, হাসান। {সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং-১১০২}

ইমাম তাহাবী রহঃ বলেন, হাদীসটি ফাসিদ। {শরহু মাআনিল আসার-৩/৭}

ইবনে কাত্তান রহঃ বলেন, হাদীসটি হাসান। {আলওয়াহমু ওয়ালইহামু-৪/৫৭৭}

জবাব নং ১

আমরা শক্তিশালিত্বের দিক থেকে আমাদের বর্ণিত হাদীসকে প্রাধান্য দিয়ে থাকি। হযরত আয়শা সিদ্দিকা রাঃ থেকে বর্ণিত হাদীসটির বিষয়ে ইমাম বুখারী রহঃ থেকে মুনকার হওয়ার এবং ইমাম তাহাবী রহঃ থেকে ফাসিদ হওয়ার কালাম রয়েছে। তাই আমরা এর উপর আমল করি না। পক্ষান্তরে আমাদের উপরে বর্ণিত সহীহ মুসলিম ও মুয়াত্তা মালিকের বর্ণনাটি সহীহ।

জবাব নং-২

এ হাদীস দ্বারাই বুঝা যাচ্ছে যে, এখানে বিবাহ বাতিল হয়ে যাওয়া উদ্দেশ্য নয়। কারণ হাদীসের শেষাংশে বলা হচ্ছে, স্ত্রী মহরের অধিকারী হবে। যদি বিবাহ শুদ্ধই না হতো, তাহলে মোহর আবশ্যক হওয়ার কথা আসছে কেন? মোহরতো বিবাহের মাধ্যমে আবশ্যক হয়। বিবাহ ছাড়া আর্থিক জরিমানার জন্য ব্যবহৃত হয় আরবী عقراশব্দ ব্যবহৃত হয়। অথচ এখানে ব্যবহৃত করা হয়েছে। মোহর শব্দ। যা বিবাহের সাথে খাস। সুতরাং বুঝা যাচ্ছে এখানে আসলেই বিবাহ বাতিল হয়ে যায়, এটি উদ্দেশ্য নয়। বরং ধমকী দেয়া উদ্দেশ্য। যেন অভিভাবকদের না জানিয়ে মেয়েরা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ না হয়।

জবাব নং ৩

أَنَّ عَائِشَةَ، زَوْجَ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم، زَوَّجَتْ حَفْصَةَ بِنْتَ عَبْدِ الرَّحْمنِ، الْمُنْذِرَ بْنَ الزُّبَيْرِ. وَعَبْدُ الرَّحْمنِ غَائِبٌ بِالشَّأْمِ.

যেমন প্রশ্নে উল্লেখিত অভিভাবক ছাড়া মহিলা কর্তৃক বিয়ে সম্পন্ন না হওয়ার হাদীসটি হযরত আয়শা সিদ্দিকা রাঃ এর। অথচ খোদ আয়শা রাঃ তার ভাই আব্দুর রহমানের মেয়ে হাফসাকে তার অভিভাবক আব্দুর রহমানকে ছাড়াই নিজে বিয়ে দিয়েছিলেন মুনজির বিন যুবায়েরের সাথে। {মুয়াত্তা মালিক, হাদীস নং-২০৪০, তাহাবী শরীফ, হাদীস নং-৪২৫৫, সুনানুস সাগীর লিলবায়হাকী, হাদীস নং-২৩৭৪, মারেফাতুস সুনান ওয়াল আসার, হাদীস নং-১৩৫২২, সুনানে কুবরা লিলবায়হাকী, হাদীস নং-১৩৬৫৩, মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-১৫৯৫৫}

সুতরাং বুঝা গেল যে, উক্ত হাদীস দ্বারা খোদ বর্ণনাকারী হযরত আয়শা রাঃ নিজেই বিবাহ শুদ্ধ হয় না একথা বুঝেন নি। বরং এর দ্বারা উদ্দেশ্য হল, বিয়ে অসম্পূর্ণ হয় অভিভাবক ছাড়া।

কারণ, যে অভিভাবক মেয়েকে লালন পালন করল, তাকে না জানিয়ে বিয়ে করাটাতো অসম্পূর্ণই। তাই বলা হয়েছে তা বাতিল। বাতিল মানে অসম্পূর্ণ।

যেমন আরেক হাদীসে এসেছে-

عَنْ جَابِرِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ، قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «أَيُّمَا مَمْلُوكٍ تَزَوَّجَ بِغَيْرِ إِذْنِ سَيِّدِهِ، فَهُوَ عَاهِرٌ»

অনুবাদ- হযরত জাবের বিন আব্দুল্লাহ রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, যে গোলাম মনীবের অনুমতি ছাড়া বিয়ে করে তাহলে সে জিনাকারী। {সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-২০৭৮, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-১৪২১২, সুনানে দারামী, হাদীস নং-২২৭৯, সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং-১১১১, তাহাবী শরীফ, হাদীস নং-২৭০৫}

আসলে কি গোলাম জিনাকারী হবে? একথাতো কেউ বলেন না। এখানে যেমন সবাই বলেন যে, এর দ্বারা ধমকী দেয়া উদ্দেশ্য। ঠিক তেমনি যেন কোন মেয়ে তার অভিভাবক ছাড়া বিয়ে না করে, কারণ মেয়ে মানুষ হওয়ার কারণে সে পাত্র নির্ণিত করতে ভুল করতে পারে, তাই সতর্ক করে বলা হয়েছে তার বিবাহ বাতিল হওয়ার সমতূল্য। যেমন গোলামের বিবাহ জিনার সমতূল্য। আসলে যিনা নয়।

জবাব নং ৪

আসলে বাতিল বলে হাদীস দ্বারা উদ্দেশ্য নেয়া হয়েছে, যদি মেয়ে গায়রে কুফুতে বিয়ে করে, তাহলে তার বিয়ে অভিভাবক এসে বাতিল করে দিতে পারে। সে হিসেবে তার বিয়েকে বাতিল বলা হয়েছে।

জবাব নং-৫

বাতিল দ্বারা উদ্দেশ্য হল, যদি নাবালেগ বা পাগল মেয়ে বিয়ে করে, তাহলে তার বিবাহ বাতিল।

এভাবে আমরা উভয় হাদীসের উপর আমল করতে পারি।

বিস্তারিত জানতে পড়ুন-

১-   ইলাউস সুনান-১১/৬৫-৭০, মাকাতাবা আশরাফিয়া দেওবন্দ।

২-    মিরকাতুল মাফাতীহ-৬/২৬৫-২৭৪, মাকাতাবা আশরাফিয়া দেওবন্দ।

৩-   তুহফাতুল আলমায়ী-৩/৫১৫-৫১৮, মাকতাবা হেযাজ দেওবন্দ।

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *