প্রকৃতির প্রতিশোধ! সত্যিই বড় ভয়ঙ্কর…

এইতো সেদিন একটা বন্ধুর সাথে দেখা
করতে তাদের এলাকায় গেছি, শরীরটা
ভীষণ ক্লান্ত আর খানিকটা অসুস্থও ছিলো, একটা চায়ের দোকানে বসলাম এক পেয়ালা লাল রক্তে (লাল চা) চুমুক দেবো বলে…😌

হঠাৎ খেয়াল করলাম সামনেই একটা
কুকুর আমার দিকে ভীষণ ক্ষুধার্ত
চোখে মিটমিট করে তাকিয়ে আছে…

আমি একটা পাউরুটি নিয়ে তাকে খাওয়াতে লাগলাম, যেহেতু আমার শরীর ভীষণ ক্লান্ত ছিলো তাই দোকানের গেটের কাছে বসেই
তাকে খাওয়াচ্ছিলাম আর কুকুরটা গেটের বাহিরে আমার পায়ের কাছে বসে খাচ্ছিলো,

হঠাৎ দোকানের ভেতর থেকে একজন
চেঁচিয়ে উঠলো, এই বের হনতো,এগুলা
আসে যে কোথায় থেকে যত্তসব…🙂🙂

এমনেই মানুষের ভিতরে রোগবালাই আসে…😊

আমি কিছুই বললাম না চুপচাপ দোকান
থেকে বের হয়ে দোকানের বিপরীত পাশে
গিয়ে দাড়িয়ে কুকুরটাকে খাওয়াতে লাগলাম,

আমার এতোটাই কষ্ট হচ্ছিলো যে দাড়িয়ে
থাকতে পারছিলাম না, তাই রাস্তায় বসে
পড়লাম আর কুকুরটাকে খাওয়াতে লাগলাম,

মানুষগুলো আমার দিকে খুব জঘন্য চোখে
তাকাচ্ছিলো, তাদের তাকানোতে আমার ঠিক
যতটা খারাপ লাগছিলো! কুকুরটার তৃপ্তিভরে
খাওয়া দেখে ততটাই শান্তি লাগছিলো…❤❤

এরই মধ্যে আমার ফ্রেন্ড চলে আসছে তারা
সেখানের স্থানীয় সবাই তাকে বা তাদের চিনে,
সে এসেই আমাকে জিজ্ঞেস করলো…😑

 

 

-কিরে একি অবস্থা তুই রাস্তায় বসেছিস কেনো!
– প্রচন্ড ক্লান্ত লাগছে দাড়িয়ে থাকতে পারছিনা,
-দোকানে বসতে পারতি!
-কুকুরটাকে খাওয়াচ্ছিলাম এতে তাদের সমস্যা
হচ্ছিলো তারা বের হয়ে খাওয়াতে বললো…😊

এর ভেতরেই দোকান থেকে সেই ভদ্রলোক বের
হয়ে এসে আমার বন্ধুকেও কতগুলা কথা শুনায়
দিলো যে এদের জন্য অসুখবিসুখ হয় ব্লা ব্লা…

আমি তার দিকে তাকিয়ে একটা মুচকি হাসি দিয়ে আমার বন্ধুকে নিয়ে চলে আসলাম আর কুকুরটাও খেয়েদেয়ে চলে গেলো তার গতব্যে…

কয়েকদিন আগে আমার ফোনে
একটা অপরিচিত নাম্বার থেকে
কল আসলো, আমি রিসিভ করলাম…

 

-হ্যালো
-আস্সালামু আলাইকুম
– বাবা আমাকে মাফ করে দিও(কান্না করছে)
– কে আপনি!
– আমাকে তুমি হয়তো চিনবে না,
মনে নেই হয়তো তোমার,
-পরিচয় দিন তাহলে অবশ্যই চিনবো,
– মনে আছে সেদিন তুমি চায়ের দোকানে
কুকুরকে বিস্কিট খাওয়াচ্ছিলা আর আমি তোমাকে বের হতে বলেছিলাম! আমি সেই হতভাগা লোকটা, মনে পড়েছে তোমার…!

 

– ও আংকেল আপনি! কেমন আছেন!
– আমি ভালো নেইরে বাবা
আমাকে তুমি মাফ করে দাও
– কি হয়েছে আংকেল!
কান্না করছেন কেনো?
– বাবা আমি সেদিন তোমাকে দোকান
থেকে বের করে দিছিলাম তাই হয়তো
আল্লাহ রাগ করে আমাকে আমার সব
কিছু থেকেই বের করে দিয়েছেন…

 

– মানে! কিছুই বুঝলাম না আংকেল, কি হইছে!
-আমার করোনা পজিটিভ তাই আমার পরিবার আমাকে একটা ঘরে রেখে দিয়েছে আমার ৯ টা ছেলে মেয়ে তোমার আন্টি আমাকে রেখে গেছে,

 

– ইন্নালিল্লাহ কি বলেন এগুলা….
– বাবা তুমি আমাকে মাফ করে দাও
– ছিঃ ছিঃ এভাবে বইলেন না,
আপনি আমার বাবার মত আপনার
উপর আমার কোনো রাগ কষ্ট নাই।

 

– অনেক কষ্টে তোমার ফ্রেন্ডকে খুজে
তোমার নাম্বারটা নিয়েছি আমি যদি
মরে যাই আমাকে মাফ করে দিও বাবা
( তিনি হাউমাউ করে কান্না করছেন…)

ফোনটা কেটে গেলো কয়েকদিনপর
কয়েকবার কল দিয়েছিলাম, কিন্তু
বারবারই বন্ধ বন্ধ বলছিলো…😊

জানিনা তিনি কেমন আছেন আদৌ
তিনি বেঁচে আছেন কিনা দোয়া করি
যেখানেই থাকুক যেনো ভালো থাকেন…😊

যাস্ট একটা কথাই বলতে চাই,কারো সাথে খারাপ ব্যবহার করার আগে প্লিজ এটা মনে রাখবেন আপনাকে যিনি সৃষ্টি করেছে! আপনার সামনে থাকা কুকুর কিংবা পশুটাকেও কিন্তু তিনিই সৃষ্টি করেছেন, আর কেউ তার সৃষ্টি জীবকে কষ্ট দিলে! তিনি কখনোই তা
সহ্য করেন না কখনোই না কিছুতেই না…😊😊

ছবিটি MD Mehedi Alam ভাইয়ের শো-রুমের
ভাইকে আমি অনেক ভালোবাসি তার একটা
কারন তিনি এই অবলাদের খুব ভালোবাসেন❤

 

______________মুহাম্মাদ আনাস ফারহান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *