রাগের মাথায় তালাক দিলে কি তালাক হয়!

রাগের মাথায় এক সাথে তিন বার তালাক দিলে তালাক হবে না, এবং স্ত্রী স্বামীর জন্য হারাম হবেন না-

প্রায়শই এমন দাবি উঠতে দেখা যায় বিভিন্ন মহল থেকে। দেশের অন্যতম ফিকহ বিশেষজ্ঞ, রাজধানী ঢাকার শাইখ যাকারিয়া ইসলামিক রিসার্চ সেন্টারের মহাপরিচালক মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদ বলছেন বাস্তবতা ও শরীয়তে ইসলামি বলছে ভিন্ন কথা। তার মতে তিনবার তালাক উচ্চারণ করলে, রাগের মাথায় তালাক দিলেও তালাক হয়ে যাবে।

তাহলে তালাক নিয়ে এমন দাবি ওঠে কেনো প্রায় সময়ই…?

মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদ বলছেন,  ১৯৬৮ সালে আইয়ুব খানের শাসনামলে যখন পারিবারিক ‘ল’ গঠিত হয় তখন সেখানে বিয়ে, তালাক, ইদ্দত বিষয়ে  ইসলামবিরোধী বেশ কিছু আইন পাস হয়। সে সময় বিখ্যাত বুজুর্গ আলেমদ্বীন মাওলানা এহতেশামুল হক থানভী রহ. বিষয়টির প্রচন্ড বিরোধিতা করেছিলেন, তার বিরোধিতা সত্ত্বেও ইসলামবিরোধী আইনগুলো পাশ করা হয়েছিল।

মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদের ভাষায়, সে সময় পাস হওয়া ইসলাম বিরোধী আইনগুলো বর্তমান সময়েও আইনের বইগুলোতে বিদ্যমান, এর মাধ্যমে এখনও কোর্টে জেরা করেন আইনজীবীরা।

এসব আইন ও ধারা আমি নিজেও পড়েছি উল্লেখ করে মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদ বলেন,

এতে কুরআন-সুন্নাহ বিরোধী যথেষ্ট ধারা উপস্থিত। তালাক বিষয়ে ইসলাম বিরোধী ধারার মধ্যে অন্যতম হল, রাগের মাথায় তালাক দিলে তালাক হবে না,

আরেকটি বিষয় হচ্ছে একসাথে তিন তালাক দিলে তালাক হবে না, সেখানে আরও একটি বিষয় উল্লেখ আছে;

স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে তালাক হলে এই বিষয়টি এলাকার চেয়ারম্যানের দরবার পর্যন্ত গড়াবে। চেয়ারম্যান যদি  এর মীমাংসা করে দিতে পারেন তাহলে তালাক বাতিল হিসেবে গণ্য হবে, স্বামী-স্ত্রী পুনরায় সংসার করতে পারবেন হিল্লা বিয়ে ছাড়া।

তিনি বলছেন, এসব ব্রিটিশ উপনিবেশ আমলে ইংরেজদের পক্ষ থেকে চাপিয়ে দেওয়া খ্রিষ্টান পারিবারিক ‘ল‌’।

উপনিবেশ আমলের সেই আইনগুলোকে মুসলিম পারিবারিক আইন বলে চালিয়ে দেওয়া হয়েছিলো।

‘মুফতি ওয়াক্কাস রহ যখন মন্ত্রীত্বের দায়িত্ব পেয়েছিলেন, তিনি এসব সংশোধনের কিছু কাজ শুরু করেছিলেন তবে তার মন্ত্রিত্বের সময়কালের স্থায়িত্ব বেশি দিন না হওয়ায় সামনে অগ্রসর হওয়া সম্ভব হয়নি’ বলে জানিয়েছেন মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদ।

মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদ আরো বলেন, রাগের মাথায় তালাক দিলে তালাক হবে না; এটা উপনিবেশ আমলে ইংরেজদের চাপিয়ে দেওয়া‘ ল’।

তিনি বলেছেন, ‘মানুষ সুস্থ-স্বাভাবিক অবস্থায় কখনো তালাক দেয় না, তালাক রাগের মাথায় দিয়ে থাকে  তাই এসব খোড়া অজুহাত গ্রহণযোগ্য নয়’।

অতএব রাগের মাথায় তালাক দিলে তালাক হয়ে যাবে এবং তালাক দেয়া স্ত্রী সেই স্বামীর জন্য হারাম হয়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *